শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ০৮:০৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::

পীরগঞ্জ হাসপাতালে রোগীদের ভোগান্তি সেবাবঞ্চিত এলাকাবাসী

বাংলার প্রতিদিন ডেস্ক ::
  • আপডেট সময় বুধবার, ১৫ মার্চ, ২০১৭
  • ৮৫ বার পড়া হয়েছে

 

জাকির হোসেন, পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাও) থেকে : ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ

উপজেলার ৫০ শয্যাবিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ইসিজি, আলট্রাসনোগ্রাম ও

এক্সে-রে মেশিন থাকার পরও নানা অজুহাতে প্রাইভেট ডায়াগনস্টিক

সেন্টাওে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হচ্ছে রোগীদের। ফলে এসব সেবা থেকে

বঞ্চিত হচ্ছেন এলাকাবাসী। এতে প্রতিদিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে

চিকিৎসা নিতে আসা শত শত রোগী অতিরিক্ত অর্থ খরচ কওে

ক্ষতিগ্রস্তসহ চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

পীরগঞ্জ উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও পৌরসভাসহ ৪ লাখ মানুষের স্বাস্থ্য

সেবার একমাত্র প্রতিষ্ঠান পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স শুরু থেকে স্বাস্থ্য

কমপ্লেক্সে ৩১ শয্যার হলেও বর্তমানে তা বাড়িয়ে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা

হয়েছে। কিন্তু জনবল সংকটসহ নানাবিধ সমস্যায় জর্জরিত স্বাস্থ্য

কমপ্লেক্সটি। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসা রোগীদের যাতে তাদের রোগ

নির্ণয়ে সকল পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে পারেন সেজন্য সরকারিভাবে ইসিজি,

আলট্রাসনোগ্রাম ও একটি এক্স-রে মেশিন দন্ত চিকিৎসার ব্যবস্থা

রয়েছে। আলাদা ল্যাবে ও রুমে রোগীদেরও রোগ নির্ণয়ের পরীক্ষা-নিরীক্ষা হওয়ার

কথা। কিন্তু এসবের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কারণে

রোগীরা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে

আসা হযরত আলী অভিযোগ করে ভোরের কাগজকে বলেন, হাসপাতালে

চিকিৎসা নিতে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রোগীদের রোগ নির্ণয়ের

জন্য নানা ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষার ব্যবস্থাপত্র হাতে দেন। ব্যবস্থাপত্র নিয়ে

হাসপাতালের ইসিজি, আল্ট্রাসনোগ্রাম ও এক্স-রে রুমে গেলে শোনা যায়

এখানে পরীক্ষা হবে না। কারণ হিসেবে সেখানকার দায়িত্বে থাকা

কর্মচারী জানান, মেশিন নষ্ট, লোক নাই বাইরে থেকে পরীক্ষা করেন

ইত্যাদি।তিনি জানান হাসপাতালের সামনে ও তার আশেপাশ্বে

ডায়াগনস্টিক সেন্টারে তারা বেশি সময় দিচ্ছেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে

সরকারি আল্ট্রাসনোগ্রাম বিভিন্ন অজুহাতে বন্ধ করে রেখেছেন।তিনি

আরও জানান,দাতেঁর চিকিৎসার জন্য সরকারী চেম্বার আছে কিন্ত

চিকিৎসক পাওয়া যায়না। যে চিকিৎসক দাতেঁর চিকিৎসার দায়িত্বে

আছে তিনি নিজেও ব্যক্তিগত ক্লিনিক বানিয়ে নিজের দায়িত্ব ফাকিঁ

দিয়ে দেদারসে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন।চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয়

জিনিসপত্র থাকলেও চিকিৎসা না দিয়ে নিজের ক্লিনিকে যাওয়ার পরামর্শ

দেন।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসা রোগীদের কৌশলে তার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে

পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে বাধ্য করছেন। এতে সরকারি সেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে

রোগীদের অতিরিক্ত টাকায় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হচ্ছে। এ হাসপাতালে

আসা রোগীদের রোগ নির্ণয়ে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হলে তারা

তাদের কমিশন ভিত্তিক ডায়াগনস্টিক সেন্টাওে নিয়ে যান বলেও অভিযোগ

রয়েছে।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন না করে নিজের পাবলিক চেম্বার

ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার নিয়েই ব্যস্ত থাকেন। স্বাস্থ্য বহির্বিভাগ ও

জরুরি বিভাগে রোগী এলেই মেশিনপত্র নষ্টের অজুহাত দেখিয়ে নিজে

কমিশন পাওয়া ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পাঠানো হয়।

এ ব্যাপারে পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা

ডা. মো. রুস্তম আলী বলেন, ‘স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ইসিজি মেশিন,

আল্ট্রাসনোগ্রাম মেশিনসহ সব মেশিন চালু আছে কিন্ত দুপুর ২ টা

পর পরিক্ষা করা হয়না ।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © banglarprotidin.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebazarbanglaro4451