শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০১:৫৬ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::

সাভারের আশুলিয়ার সরকারী নয়নজুলি খাল ভূমি জমি অবৈধভাবে দখল করে বিভিন্ন স্থাপনা তৈরি করার অভিযোগ উঠেছে।

বাংলার প্রতিদিন ডেস্ক ::
  • আপডেট সময় শনিবার, ৮ অক্টোবর, ২০১৬
  • ১৮৪ বার পড়া হয়েছে

 

 

ঢাকার সাভারের আশুলিয়ার সরকারী নয়নজুলি খাল ভূমি জমি অবৈধভাবে দখল করে বিভিন্ন স্থাপনা তৈরি করার

অভিযোগ উঠেছে। অবৈধ দখলদার থেকে উদ্ধারের জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের ভুমিকা কি? এ নিয়ে জনমনে

নানারকম প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। খালটি উদ্ধার ও তদন্তের নামে অবৈধ দখলদারদের সাথে কথিপয় লোকজন অর্থ

বাণিজ্য করছে বলে অভিযোগ উঠেছে এলাকাবাসী।

জানা গেছে,সাভার উপজেলাধীন দিয়াখালী মৌজার ১ নং খাস খতিয়ানের ৫৩৩ নং দাগের ০৯একর সরকারী

ভূমি জমিতে বেশ কিছু অবৈধ স্থাপনা রয়েছে। এসব স্থাপনা ও অবৈধ দখলদারদের কাছ থেকে উদ্ধারের জন্য

বিভিন্ন প্রতারণামুলক কর্মকান্ড করে আসছে একটি মহল। বার বার প্রশাসন অভিযান পরিচালনা করেও

নয়নজুলি খালটি উদ্ধার করতে পারেনি বলে স্থানীয়রা জানান।

সরকারি কমিশনার (ভুমি) এর কার্যালয় আশুলিয়া রাজস্ব সার্কেল-এর কর্মকর্তা বিকাশ বিশ্বাসের কাছে

বিষয়টি জানালে তিনি বলেন,সরকারি খাল ও জমি উদ্ধারে কোনো প্রকার অনিয়ম হবে না। বিষয়টি ডিসি

স্যার” তদন্ত করাসহ অবৈধ দখলদারদের কাছ থেকে উদ্ধার করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলেছেন। উক্ত

নয়নজুলি খালটি উদ্ধার করার ব্যাপারে স্থানীয়রা ঢাকা জেলা প্রশাসক বরাবর অবৈধ দখলদারদের তালিকা

দিয়েছেন। প্রশাসন সেখানে এর এগেও ২,একটি স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে, অন্যরা এখনও সরকারী ভুমি জমি দখল

করে বাসা বাড়ি, ঘরসহ বিভিন্ন স্থাপনা তৈরি করে রেখেছে। স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, অবৈধ দখলদাররা

সরকারী কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করেই তারা অবৈধ স্থাপনা তৈরি করে রেখেছে। স্থানীয়রা আরও বলেন, সাভার

উপজেলাধীন সরকারী এরকম অনেক ভূমি জমি রয়েছে। যা সন্ত্রাসীদের দখলে,এরা না কি চোরে চোরে খালাতো

ভাই! এ কারণে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারে না প্রশাসন।

ঢাকার সাভার উপজেলাধীন আশুলিয়ার জামগড়-চিত্রশাইল,বেরণ গ্রামের অনেক মানুষ ও বিভিন্ন শিল্প কারখানার

মালিকসহ হাজার হাজার জনগণ বলছে, গাজির দরগা হইতে বেরন পর্যন্ত নয়নজুলি খালের অবৈধ দখলদারের

বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার ভূমি অফিসার এবং জেলা প্রশাসক বরাবর

লিখিত অভিযোগ করেছেন। হাজার হাজার জনগণের দাবি -উক্ত নয়নজুলি খালটি পুরোটুকুও খোলা থাকলে

কয়েক হাজার বাড়ি ঘর ও প্রায় ৪১ টি ইন্ডাষ্ট্রির জলাবদ্ধতা থেকে রিহাই পাবে। জানা গেছে, বৃষ্টি হলেই

কয়েক হাজার বাড়ি ঘর প্রায় ৩ ফিট পানির নিচে পড়ে। দেখা যায়,ওই খালটির জলাবদ্ধতার কারণে বিভিন্ন

ভাবে পরিবেশ দুষণ হচ্ছে। উক্ত সরকারী নয়নজলি খালটি দখল মুক্ত করলে কয়েক লাখ মানুষ পরিবেশ দূষণের হাত থেকে

মুক্তি পাবে। উক্ত খালটি দিয়াখালী মৌজার ৫৬০ নং এ আওতা ভুক্ত রয়েছে বলে স্থানীয়রা জানান।

উক্ত নয়নজলি খালসহ সাভারের কমলাপুর, আশুলিয়ার করিরপুর,বাড়ইপাড়া মৌজায় জে,এল, ৫৩১ নং সি, এস, দাগ

নং ১০৪, ১০৮, ১১৫, ১১৮, ১৩৪, ৪০৭, ৪১১, ৪১৫, ৪১৭,সহ সরকারী শত শত একর খাস জমি অবৈদভাবে দখল করে

রেখেছে সন্ত্রাসীরা। সরকারী জমি দখলমুক্ত করার বিষয়ে সচেতন মহল মনে করছেন,সরকারী কর্মকর্তারা চাইলেই

এসকল খাস জমির ব্যাপারে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নিয়ে সরকারী জমি উদ্ধার করতে পারেন। উক্ত ব্যাপারে

ধারাবাহিক ভাবে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে। পর্ব ২।

 

 

 

হেলাল শেখ,

সাভার\প্রতিনিধি ঢাকা।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © banglarprotidin.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebazarbanglaro4451