শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ০৫:৫৯ পূর্বাহ্ন

বঙ্গবাহাদুরের মৃত্যুর বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে লিগ্যাল নোটিশ

বাংলার প্রতিদিন ডেস্ক ::
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৬
  • ১৯৩ বার পড়া হয়েছে

 

জাহিদ হাসান সরিষাবাড়ী , জামালপুর প্রতিনিধি।।।

বঙ্গবাহাদুরের মৃত্যুর বিচার বিভাগীয় তদন্ত করে দোষীদের আইনের আওতায় আনতে সরকারের সংশ্লিষ্টদের লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ড. ইউনুছ আলী আকন্দ। গতকাল বুধবার তিনি এ নোটিশ দেন। নোটিশ জারির ২৪ ঘণ্টার মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ ও হাতির মৃত্যু এবং ব্যর্থতার কারণ অনুসন্ধানে বিচার বিভাগীয় কমিটি করতে বলা হয়েছে। মৎস্য ও পশুসম্পদ, বন ও পরিবেশ, স্বরাষ্ট্র এবং স্থানীয় সরকার সচিব, মহাপরিচালক প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর এবং জামালপুরের ডিসিকে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে ব্যর্থ হলে এ বিষয়ে নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা হবে বলে এতে উল্লেখ করা হয়েছে।

নোটিশে বলা হয়, গত ২৬ জুন বন্যহাতিটি ভারতের আসাম থেকে বন্যার পানিতে ভেসে কুড়িগ্রাম সীমান্ত হয়ে বাংলাদেশে ঢোকে। এটি বিভিন্ন জেলা ঘুরে জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার কামরাবাদ ইউনিয়নের কয়বা গ্রামে গত ১৬ আগস্ট মারা যায়। ইতিপূর্বে চেতনানাশক ওষুধ দিয়ে হাতিটিকে অজ্ঞান করলে ১০ ঘণ্টা পর তার জ্ঞান ফেরে। হয়তো চেতনানাশক ওষুধ বেশি পুশ করার কারণেই হাতিটি মারা গেছে। এ ছাড়া হাতিটি উদ্ধারে বন বিভাগ, পশুসম্পদ বিভাগ বা সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্তৃপরে দায়িত্বহীনতা বা অবহেলাও থাকতে পারে। এ বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়েছে যে, হাতিটিকে হত্যা করা হয়েছে।

মাটিচাপা বঙ্গবাহাদুরের পাহারায় ৮ গ্রামপুলিশ

সরিষাবাড়ী প্রতিনিধি জানান, ভারতের আসাম রাজ্য থেকে বানের জলে ভেসে এসে মারা যাওয়া বঙ্গবাহাদুর নামের হাতিটিকে যে স্থানে মাটিচাপা দেওয়া হয়েছে সেখানে গ্রামপুলিশের পাহারা বসানো হয়েছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার কামরাবাদ ইউনিয়নের কয়রা গ্রামের (পোড়াবন্দ) এলাকায় আলহাজ বরকত উল্লার জমিতে মৃত হাতিটিকে মাটিচাপা দেওয়া হয়। ওই স্থান থেকে কোনো গোষ্ঠী কিংবা অন্য কোনো প্রাণী যাতে হাতিটিকে তুলে নিতে না পারে ও পরিবেশের ভারসাম্য যাতে নষ্ট না হয়, সেজন্য এই পাহারার ব্যবস্থা ও তদারকি দল গঠন করেছে সরিষাবাড়ী উপজেলা প্রশাসন। প্রতিদিন ওই স্থান সার্বণিক পাহারা দিচ্ছেন ৮ জন গ্রামপুলিশ; টহলে রয়েছে সরিষাবাড়ী থানা পুলিশ; তদারকিতে আছেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের কর্মকতা, ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বার, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক ও স্থানীয় সুশীল সমাজের ব্যক্তিরা। সরিষাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইয়েদ এ জেড মোরশেদ আলী এ সংক্রান্ত একটি কর্ম বণ্টন তালিকা করে গতকাল এক পত্র জারি করেছেন

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © banglarprotidin.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebazarbanglaro4451