বুধবার, ১২ মে ২০২১, ০৫:২৭ অপরাহ্ন
ময়মনসিংহ

না খেতে পেয়ে দুর্বল হয়ে পড়ছে হাতিটি 

জাহিদ হাসান সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধি:   আসামে বন্যা ও পাহাড়ী ঢলের কারণে দলছুট হয়ে গত ২৭শে জুন বাংলাদেশে প্রবেশ করে এই হাতিটি।  ভারতের আসাম থেকে বাংলাদেশের ভেতরে এসে আটকে পড়া বন্য হাতিটি খাদ্যের অভাবে দুর্বল হয়ে পড়ছে বলে জানাচ্ছেন বন বিভাগের কর্মকর্তারা। হাতিটিকে উদ্ধারের জন্য বন বিভাগের ১৭ সদস্যের একটি উদ্ধারকারী দল গতকাল শনিবার থেকে হাতিটিকে অনুসরণ করছে। হাতিটি এখন জামালপুরের মাদারগঞ্জ উপজেলার ডাকাতিয়া নামে একটি গ্রামে অবস্থান করছে। এই প্রতিবেদন যখন লেখা হচ্ছে, তখন হাতিটি বুক সমান পানিতে ডুবে বিশ্রাম করছিল বলে জানাচ্ছেন কর্মকর্তারা। উদ্ধারকারী দলের নেতা বণ্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের পরিদর্শক অসীম মল্লিক বিবিসি বাংলাকে বলছেন, তাঁরা হাতিটিকে ট্রাঙ্কুলাইজার ব্যবহারের মাধ্যমে অজ্ঞান করে উদ্ধার করার সার্বিক প্রস্তুতি নিয়ে রয়েছেন। আগামী ৩রা অগাস্ট ভারতের বন বিভাগের একটি প্রতিনিধি দলের বাংলাদেশে আসবার কথা রয়েছে।   ওই দলটি আসার আগেই হাতিটিকে তারা নিরাপদ হেফাজতে নিতে চান। তবে এখন উত্তরাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতি মারাত্মক অবস্থা ধারণ করায় তাঁরা হাতিটিকে অজ্ঞান করার জন্য কোন উঁচু ভূমি পাচ্ছেন না। “আপনি জানেন, আমরা যদি পানির ভেতরে হাতিটিকে অজ্ঞান করি তাহলে সেটি মারা যাবে। হাতিটির নাক মুখ দিয়ে পানি ঢুকে পড়বে। তাই আমরা উঁচু জমি খুঁজছি”। “উঁচু জমি পেলেই হাতিটিকে তাড়িয়ে সেখানে নিয়ে যাব এবং ট্রাঙ্কুলাইজার গান ব্যবহার করে অজ্ঞান করে কোন গাছের সাথে বেঁধে রাখব”। এর আগে সিরাজগঞ্জেও একবার উদ্ধারকারী দল গিয়েছিল হাতিটিকে উদ্ধার করতে কিন্তু সেবার ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসে। খাবারের অভাবে হাতিটি কিছুটা শুকিয়ে গেছে বলে উল্লেখ করছিলেন মি: মল্লিক। হাতিটি এখন পর্যন্ত দু’একটি ঘরবাড়ি পদদলিত ও ফসলের ক্ষয়ক্ষতি করা ছাড়া অন্য কোন বড় ধরনের ক্ষতিসাধণ করেনি।  এর আগে হাতিটি যেসব অঞ্চলে বিচরণ করছিল সেখানে ধানক্ষেত ছিল এবং সেগুলো খেয়ে হাতিটি সবল ছিল। কিন্তু বন্যার পানিতে ধানক্ষেত তলিয়ে যাওয়ায় হাতিটির খাদ্যাভাব দেখা দিয়েছে। বন বিভাগের উদ্ধারকারী দলটি স্থানীয় অধিবাসীদের সহযোগিতায় হাতিটিকে কলাগাছ খেতে দিচ্ছে, তবে তা হাতিটির জন্য যথেষ্ট নয় বলে জানা যাচ্ছে। এর আগে বন বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, হাতিটির ওজন প্রায় ৫ টন এবং এই আকারের একটি হাতির দৈনিক ১৫০ কেজির মত খাদ্যের প্রয়োজন। আসামে বন্যা ও পাহাড়ী ঢলের কারণে দলছুট হয়ে গত ২৭শে জুন বাংলাদেশে প্রবেশ করে এই হাতিটি। এর পর চারশো কিলোমিটারেরও বেশী পথ পাড়ি দিয়ে কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা,

বিস্তারিত

সরিষাবাড়ীতে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত, আন্তঃজেলা সড়ক ও রেল যোগাযোগ বন্ধ

জাহিদ হাসান সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধি:  জামালপুর:জামালপুরের বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্টে যমুনা ও ব্রহ্মপুত্র নদী অববাহিকায় পানি কিছুটা কমলেও উজানের ঢল অব্যাহত থাকায় জেলার নীচু অঞ্চল সরিষাবাড়ী পৌরসভাসহ উপজেলার ৮টি ইউনিয়নেই বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। ডায়রিয়াসহ নানা পানিবাহিত রোগ-ব্যাধি ছড়িয়ে পড়ছে দ্রুতগতিতে। পানিবন্দি মানুষদের বিশুদ্ধ পানি ও তীব্র খাবার সঙ্কট দেখা দিয়েছে। নারী-শিশু, বৃদ্ধ ও অসুস্থ মানুষদের দুর্ভোগ বেড়েছে। বিপাকের সৃষ্টি হয়েছে গবাদি পশু-পাখি নিয়ে। প্রয়োজনের তুলনায় পর্যাপ্ত ত্রাণ সহায়তা না থাকায় হাহাকার করছে শতাধিক গ্রামের লক্ষাধিক বন্যার্ত মানুষ। এদিকে বেসরকারী সংস্থার ত্রাণ তৎপরতাও তেমন লক্ষ্য করা যায় নি বন্যার্ত এলাকায়। তবে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে রোববার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুল এবং কলেজ শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রায় ৭ হাজার রুটি সংগ্রহ করে বন্যার্তদের মধ্যে বিতরন করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইয়েদ এ.জেড. মোরশেদ আলী জানান, ‘এ পর্যন্ত ১০৫ মে. টন সরকারি চাল বরাদ্দ এসেছে। ইউপি চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে অধিক বন্যার্ত পরিবারের মধ্যে মাথাপিছু ১০ কেজি করে চাল বিতরন করা হচ্ছে।’ তবে সমাজের বিত্তশালী ও বেসরকারী সংস্থাদের সাহায্যে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি। এদিকে বিভিন্ন সড়ক ও বেরি বাঁধ ভেঙে যোগাযোগ ব্যবস্থা নাজুক হয়ে পড়েছে। জামালপুর-সরিষাবাড়ী রেল লাইনের বেশ কিছু স্থানে বন্যার পানি ওঠায় শনিবার থেকে ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। জেলা সদরে যাতায়াতের প্রধান মাধ্যম সরিষাবাড়ী-জামালপুর রোডের ফুলবাড়িয়া এলাকার দুই স্থানে শনিবার প্রবল ¯্রােতে ভেঙে গেছে। এছাড়া সরিষাবাড়ী-মাদারগঞ্জ রোডের কয়েক স্থানে পানি ওঠায় বন্ধ হয়ে গেছে আন্তঃজেলা ও জেলা সদরে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা। উপজেলা প্রকৌশলী আমজাদ হোসেন জানান, ‘সাতপোয়া ইউনিয়নের ঝালুপাড়া-চর সরিষাবাড়ী-ঘোড়ামারা রোড, পোগলদিঘা ইউনিয়নের মালিপাড়া-চরগিরিশ রোড ও পিংনা ইউনিয়নের নরপাড়া রোড বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। প্রায় দুই কোটি টাকা ব্যয়ে এলজিইডির সদ্য সমাপ্ত সড়ক তিনটি বন্যায় প্রায় ৮০ ভাগ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। উপজেলার পাঁচটি বেরি বাঁধের সবগুলোই পানিতে ডুবে গেছে।’ এদিকে পোগলদিঘা ইউনিয়নের গাছ বয়ড়া বেরি বাঁধ ভেঙে তলিয়ে গেছে কয়েকটি গ্রাম। কামরাবাদ ইউনিয়নের শুয়াকৈর-বড়বাড়িয়া বেরি বাঁধসহ কয়েকটি বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে ওই ইউনিয়নের অধিকাংশ গ্রাম। মহাদান ইউনিয়নের তালতলা বেরি বাঁধ ভেঙে নতুন করে প্লাবিত হয়েছে অন্তত ১০টি গ্রাম। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে ছোট-বড় অন্তত ২০টি সড়ক পানিতে ডুবে এবং ভেঙে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ঘর থেকে বের হতে না পারায় এলাকার মানুষ যাতায়াতে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। অপরদিকে নদীতে পানি কমতে শুরু করলেও পৌর এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে নতুন করে। আরামনগর ও শিমলা বাজারের অধিকাংশ স্থান ডুবে গেছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, খাদ্য গুদাম, ঐতিহাসিক গণময়দানসহ গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের স্বাভাবিক কাজ-কর্মে স্থবিরতা নেমে এসেছে। উপজেলা পরিষদ সুত্রে জানা গেছে,

বিস্তারিত

সরিষাবাড়ীতে ইউপি চেয়ারম্যানের  বিরুদ্ধে গাছ কাটার দায়ে মামলা

  জাহিদ হাসান সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধি: জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। গত রোববার উপজেলা প্রকৌশলী আমজাদ হোসেন বাদী হয়ে পিংনা ইউপি চেয়ারম্যান খন্দকার মোতাহার হোসেন অবৈধভাবে সরকারি গাছ কর্তনের অভিযোগে তাকে আসামি করে সরিষাবাড়ী থানায় মামলা দায়ের করেন। জানা গেছে, সরিষাবাড়ী উপজেলার পিংনা ইউনিয়নের ফুলদহেরপাড়ার সাজেদা-মমতাজ ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের সদস্য সচিব আজিজুল আলিম ১৯৯০ সালে এলজিইডি’র অনুমতি নিয়ে শর্ত সাপেক্ষে বারইপটলবেড়া ডাকুরী এলজিইডি সড়কের দু’পাশে বৃক্ষ রোপণ করেন। রোপণকৃত গাছগুলো কর্তনের উপযোগী হওয়ায় এলজিইডি ও পরিবেশ ও বন বিভাগের অনুমতি ছাড়াই ১৩ জুলাই অবৈধভাবে ৮৬টি মেহগনি গাছ সহ প্রায় ৩৫ লক্ষ টাকার গাছ ১৭ লাখ টাকায় বিক্রি করেন পিংনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান খন্দকার মোতাহার হোসেন। সরকারি গাছ অবৈধভাবে কর্তনের অভিযোগে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রকৌশলী বাদী হয়ে এ মামলা

বিস্তারিত

জামালপুরে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি,পাঁচ লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি

জাহিদ হাসান জামালপুর থেকে: জামালপুরে গত ২৪ ঘন্টায় যমুনা ও ব্রক্ষ্মপুত্র অববাহিকায় নতুন করে আরো ৩২ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। আজ শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত যমুনা নদীতে বন্যার পানি বিপদসীমার ১১৬

বিস্তারিত

© All rights reserved © 2016-2021 BanglarProtidin
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebazarbanglaro4451