বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১২:৩৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ ::
বরগুনায় স্ত্রীর সামনে প্রকাশ্যে যুবককে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় চন্দন নামের একজন আটক

পাবনায় কুপিয়ে কলেজছাত্র খুন, অভিযোগ যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে

বাংলার প্রতিদিন ডেস্ক
  • আপডেট টাইম শনিবার, ১৩ এপ্রিল, ২০১৯
  • ৭ বার পড়া হয়েছে

পাবনা সদর উপজেলায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে পূর্ববিরোধের জের ধরে এক কলেজছাত্রকে হত্যা করা হয়েছে। হামলায় আহত হয়েছেন আরো ছয়জন।

গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলার হারিয়াবাড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় যুবলীগ নেতা বাবু ওরফে কটা বাবুর নেতৃত্বে এ হামলা চালানো হয়েছে বলে পুলিশের কাছে অভিযোগ করা হয়েছে।

নিহত কলেজছাত্রের নাম শৈশব সাহা। সে পাবনা সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিল। সে পাবনা পৌর এলাকার সিঙ্গা পালপাড়ার চাল ব্যবসায়ী ভজেন্দ্র নাথ সাহার ছেলে।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওবায়দুল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পাবনা সদরের মালঞ্চি ইউনিয়নের হারিয়াবাড়ি এলাকার বঙ্গবন্ধু যুব পরিষদের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন এবং যুবলীগ নেতা বাবু ওরফে কটা বাবুর সমর্থকদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধ চলে আসছে।

গতকাল সন্ধ্যায় মোটরসাইকেলে করে মামুনের সমর্থক শৈশব সাহাসহ ১০ থেকে ১২ জনের একটি দল বৈশাখী উৎসবের দাওয়াতপত্র বিতরণ করতে হারিয়াবাড়ি গ্রামে যায়। এ সময় পূর্ববিরোধের জের ধরে একদল দুর্বৃত্ত তাদের পথরোধ করে হামলা চালায়। হামলাকারীরা তাদের এলোপাতাড়ি মারপিট ও কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যায়। এ সময় দুর্বৃত্তরা ছয়টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে।

পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার পথে শৈশব মারা যায়। আহত ছয়জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ওসি ওবায়দুল হক আরো জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। হামলাকারীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

এ ব্যাপারে একপক্ষের নেতা হারিয়াবাড়ি এলাকার বঙ্গবন্ধু যুব পরিষদের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘বৈশাখী উৎসবের জন্য আমাদের লোকজন হারিয়াবাড়ি গ্রামে দাওয়াতপত্র বিলি করছিল। এ সময় কটা বাবুর লোকজন হামলা করে শৈশবকে হত্যা করেছে। তারা ছয়টি মোটরসাইকেল ভাঙচুরসহ ছয় থেকে সাতজনকে গুরুতর আহত করেছে। আমরা এই হত্যাকাণ্ডের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

এ ব্যাপারে অন্যপক্ষের যুবলীগ নেতা কটা বাবুর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তা সম্ভব হয়নি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 banglarprotidin
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebazarbanglaro4451