মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০২:০৬ পূর্বাহ্ন

অগ্নিদুর্ঘটনা রোধে একগুচ্ছ নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর

বাংলার প্রতিদিন ডেস্ক
  • আপডেট টাইম সোমবার, ১ এপ্রিল, ২০১৯
  • ৪২ বার পড়া হয়েছে
অগ্নি দুর্ঘটনা রোধে প্রধানমন্ত্রীর একগুচ্ছ নির্দেশনা

অনলাইন রিপোর্ট:

অগ্নিদুর্ঘটনা রোধে এবং দুর্ঘটনার পর ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে একগুচ্ছ নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে তিনি এসব অনুশাসন দেন।প্রধানমন্ত্রীর এসব নির্দেশনার মধ্য রয়েছে-

১. হাইরাইজ বিল্ডিং তৈরির সময় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ছাড়পত্র প্রদানের সময় যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ।

২. ছাড়পত্র নবায়নের ব্যবস্থা রাখা।

৩. আগুনের সময় ধোয়ায় মানুষ দমবন্ধ হয়ে বেশি মারা যায়। এজন্য ধোঁয়া নিয়ন্ত্রণে আধুনিক ব্যবস্থা গ্রহণ।

৪. রাজধানীতে পানির সরবরাহ বাড়াতে জলাধার, লেক, খালগুলো সংরক্ষণের জোর তাগিদ।

৫. আগুন নেভানোর ও মানুষ উদ্ধারের সরঞ্জাম কেনা।

৬. অগ্নিকাণ্ড বা অন্যান্য দুর্ঘটনায় ২৩ তলা পর্যন্ত পৌঁছানোর উপযোগী লেডার/লম্বা সিঁড়ি তিনটি আছে ফায়ার সার্ভিসের। এর সংখ্যা বাড়াতে হবে।

৭. বাসাবাড়ি, অফিস বা বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণ করতে হবে চারপাশে দরজা-জানালাসহ এবং শত ভাগ ফায়ার এক্সিট নিশ্চিত করতে হবে।

৮. বৈদ্যুতিক দরজা পরিত্যাগ করে অন্য দরজা লাগাতে হবে যাতে বিদ্যুৎ না থাকলে বা দুর্ঘটনার সময় তা খোলা যায়।

৯. ভবনের চারপাশে জাল লাগানো সিস্টেম থাকতে হবে। কেউ যাতে ওপর থেকে পড়ে মারা না যায় সেজন্য এই ব্যবস্থা রাখতে হবে।

১০. হাসপাতাল ও স্কুলে অবশ্যই বারান্দা রাখতে হবে যেন কোনও দুর্ঘটনার সময় মানুষ আশ্রয় নিতে পারে।

১১. ইন্টেরিয়র ডিজাইনাররা জায়গা বাঁচাতে ভবনের ভেতর সব জায়গা বন্ধ করে ডিজাইন করে। এরকম কোনও ডিজাইন করা যাবে না। মানুষ যেন অবাধে যাতায়াত করতে পারে সেই ব্যবস্থা রাখতে হবে।

১২. দুর্ঘটনার সময় মানুষ যাতে লিফট ব্যবহার না করে সেজন্য সচেতনতা বাড়াতে হবে।

১৩. যে কোনও ভবনে আশা-যাওয়ার জন্য একাধিক দরজা রাখতে হবে। ভবনে প্রবেশের একটা দরজার সিস্টেম পরিহার করতে হবে।সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে এ সভা হয়। সভা শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. শফিউল আলম সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 banglarprotidin
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebazarbanglaro4451